স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।ক্যাপিটালমার্কেট২৪.কম

সেপ্টেম্বর ১২, ২০২০

প্রধানমন্ত্রীকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর ফোন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ড. মার্ক টি এসপার (Dr. Mark T Esper) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করেছেন।শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টেলিফোনে তার আলাপ হয়।আলাপকালে ‘রোহিঙ্গা সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে সহায়তা করবে’ বলে জানান ড. মার্ক টি এসপার।

সেক্রেটারি এসপার কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবেলায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নেয়া পদক্ষেপ এবং প্রতিবেশী দেশগুলোর মঙ্গলার্থে তার সাম্প্রতিক কার্যক্রমের প্রশংসা করেন।

উভয় নেতা সকল দেশের সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করতে একটি অবাধ ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিকের প্রতি তাদের যৌথ প্রতিশ্রুতি নিয়ে আলোচনা করেছেন এবং সামুদ্রিক ও আঞ্চলিক সুরক্ষা, বৈশ্বিক শান্তিরক্ষা, এবং বাংলাদেশের সামরিক সামর্থ্যকে আধুনিকীকরণের উদ্যোগসহ সুনির্দিষ্ট দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা বিষয়ক অগ্রাধিকারগুলো নিয়ে আলোচনা করেছেন। উভয় নেতা পারস্পরিক স্বার্থ ও মূল্যবোধের সমর্থনে ঘনিষ্ঠ দ্বিপক্ষীয় প্রতিরক্ষা সম্পর্ক অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

টেলিফোন আলাপের বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।ইহসানুল করিম জানান, তিনি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা অভিযানে এক নম্বর সেনা অবদানকারী দেশ হিসাবে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

আগস্টে বৈরুত বন্দরে মারাত্মক বোমা বিস্ফোরণে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি জাহাজের ক্ষয়ক্ষতির জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন।

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী আশা করেন যে বাংলাদেশ শান্তিরক্ষী বাহিনীর সাথে শান্তি-গঠনে তার “উত্পাদনশীল ভূমিকা” অব্যাহত রাখবে এবং জানিয়েছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এ ব্যাপারে তাদের সমর্থন অব্যাহত রাখবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন মার্কিন নির্বাচন সম্পর্কে কথা বলেছেন এবং প্রত্যাশা করেছেন যে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হবে।

প্রধানমন্ত্রী বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বঙ্গবন্ধুর পলাতক আসামি হত্যাকারী রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে আনতে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সমর্থনও চেয়েছেন।