স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।ক্যাপিটালমার্কেট২৪.কম

সেপ্টেম্বর ১১, ২০২০

বেড়েছে মরিচ পেঁয়াজ ও সবজির দাম

দেশব্যাপী বন্যা এবং অতিবৃষ্টির কারণে কাঁচা মরিচের গাছ পচে যাওয়া দীর্ঘদিন ধরেই মরিচের বাজারে আগুন। এরইমধ্যে সপ্তাহের ব্যবধানে ২৫ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। আর বাজারে ৫০ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না কোন ধরনের শাক-সবজি। নিত্যপণ্যের এমন উচ্চাভিলাষী দাম নিয়ে আতঙ্কিত সাধারণ মানুষ।

আজ (১১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মিরপুর, শেওড়াপাড়া কাজীপাড়া আগারগাঁও ও কাওরান বাজার ঘুরে এবং ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।

রাজধানীর বিভিন্ন খুচরা বাজারে দাম বেড়ে প্রতি কেজি কিং (দেশি) পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৭৫ টাকাতে। এক সপ্তাহ আগে এ পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কেজি। দেশি পেঁয়াজ (ছোট সাইজ) বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা কেজি। এটি এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছে ৪০ টাকা করে। আর আমদানি করা পেঁয়াজ (ইন্ডিয়া) বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা করে। যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৩০ থেকে ৩৫ টাকা।

কাঁচা মরিচের দাম নাগালের বাইরে থাকলেও সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে। এক সপ্তাহ আগে ২০০ থেকে ২২০ টাকা কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হলেও এখন তা কমে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে শীতের সবজির মধ্যে অন্যতম বাঁধাকপি, ফুলকপি ও শিম। পুরো শীত মৌসুমে দেশের সর্বত্র এসব সবজি পাওয়া যায়। তবে সময়ের বিবর্তনে বদলেছে অনেক কিছু। ভ্যাপসা গরমের মধ্যেই এখন রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে মিলছে এসব সবজি। তবে দাম বেশ চড়া।

শীতের মৌসুমে যে শিমের কেজি ২০ টাকায় বিক্রি হয়, তা এখন ২০০ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না। ছোট আকারের ফুলকপি, বাঁধাকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা। এমন আকাশচুম্বী দামের পরও একশ্রেণির ক্রেতা নতুন এই সবজি কিনতে বাজারে ছুটছেন।

এসব ক্রেতা বলছেন, এমনিতেই দীর্ঘদিন ধরে বাজারে সব ধরনের সবজির দাম চড়া, এর মধ্যে নতুন আসা সবজির দাম চড়া হবে এটাই স্বাভাবিক। তাছাড়া নতুন সবজির প্রতি সবারই বাড়তি এক ধরনের আকর্ষণ থাকে।

এদিকে ব্যবসায়ীরা বলছেন, বর্তমান বাজার চিত্রে নতুন সবজি হিসেবে ফুলকপি, বাঁধাকপির দাম তুলনামূলক কম। কারণ গত বছর সবজির দাম বর্তমানের তুলনায় কম ছিল। কিন্তু গত বছর ফুলকপি, বাঁধাকপি বাজারে যখন নতুন আসে তখন দাম এর চেয়ে বেশি ছিল।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, চারজনের পরিবারের এক বেলার জন্য দুটি লাগবে এমন ছোট আকারের ফুলকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ৩০-৫০ টাকায়। একই দামে বিক্রি হচ্ছে বাঁধাকপি। শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৮০-২০০ টাকায়।

শীতের এসব আগাম সবজির এমন দামের বিষয়ে কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম বলেন, আমাদের হিসেবে এবার শীতের আগাম সবজি শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপির দাম তুলনামূলক কম। কারণ গত বছর নতুন অবস্থায় শিমের কেজি ২৫০ টাকা বিক্রি হয়েছে, অথচ এখন ১৮০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। আর গত বছর নতুন অবস্থায় বাঁধাকপি, ফুলকপির পিস বিক্রি হয়েছে ৪০ টাকার ওপরে, এখন ৩০ টাকা বিক্রি করছি।

তিনি আরও বলেন, বাজারের অন্য সবজির দামের সঙ্গে তুলনা করলে দেখবেন, এখন সব ধরনের সবজির দাম বেশি। এখন তো বাজারে ৫০ টাকার নিচে কোনো সবজির কেজি বিক্রি হচ্ছে না। সেখানে ৩০ টাকা দিয়ে এক পিস ফুলকপি, বাঁধাকপি পাওয়া ক্রেতাদের জন্য সুখবরই।

শেওড়াপাড়া বাজারে শিমের কেজি ২০০ টাকা এবং বাঁধাকপি ও ফুলকপি ৫০ টাকা পিস বিক্রি করছেন ব্যবসায়ী মো. রাজীব। তিনি বলেন, শীতের আগাম সবজি শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপি কয়েকদিন ধরেই বাজারে আসছে। নতুন আসায় এখন এগুলোর দাম একটু বেশি। আর কিছুদিন গেলে এবং সরবরাহ বাড়লে এসব সবজির দাম আরও কমে যাবে। সেই সঙ্গে অন্যান্য সবজির দামও কমবে।

এদিকে বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, গত কয়েক সপ্তাহের মতো এখনো পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০-১৪০ টাকা। গাজর বিক্রি হচ্ছে ৮০-১০০ টাকা কেজি। উস্তার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০-১০০ টাকায়। বরবটি বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকা কেজি। এছাড়া পটল, কাঁকরোল বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা কেজি। বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা কেজি। লাউ বিক্রি হচ্ছে ৬০-৭০ টাকা পিস।

শেওড়াপাড়া থেকে বাজার করা হারুন-উর-রশিদ বলেন, সবজির এখন যে দাম তাতে মাছ-মাংসের চেয়ে সবজির পেছনেই বেশি টাকা খরচ হচ্ছে। দুই মাসের বেশি হয়ে গেছে ৫০ টাকার নিচে কোনো সবজি পাওয়া যাচ্ছে না। বাজারে এখন নতুন সবজি হিসেবে ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম পাওয়া যাচ্ছে। ৮০ টাকা দিয়ে দুটি ফুলকপি কিনেছি, এতে আমাদের চরজনের পরিবারে বড়জোর দুইবেলা খাওয়া হবে।

শরিফুল ইসলাম নামের এক ক্রেতা বলেন, দামের কারণে সবজি খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দিয়েছি অনেক দিন হয়ে গেছে। কিন্তু একেবারেই সবজি না খেলে হয় না। তাই মাঝে মধ্যে অল্প পরিমাণ সবজি কিনি। এরপরও ১০০ টাকার সবজি দিয়ে একদিন চলে না।